মঠবাড়ীয়ায় কলেজ শিক্ষিকাকে উত্ত্যক্ত করায় যুবককে গণধোলাই

0
100

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া একটি কলেজের শিক্ষিকা (২২) কে উত্যাক্ত ও তার মোবাইল. ব্যনিটিব্যাগ ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় সঞ্জয় মিত্র ওরফে এস.এম আকাশ  নামে এক কথিত সাংবাদিককে গণ ধোলাই দিয়েছে স্থানীয়রা। বুধবার সকালে উপজেলার ঘোষের টিকিকাটা এলাকায় মানিক খা-এর দোকান সংলগ্ন সড়কে এ ঘটনা ঘটে। এস.এম আকাশ  পৌর শহরের দক্ষিণ বন্দর (পিয়াজ হাটা) এলাকার সুধির রঞ্জন মিত্রের ছেলে। সে একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকার পিরোজপুর জেলা প্রতিনিধি হিসেবে পরিচয় দিয়ে আসছিল।

স্থানীয়, যুবক আলামীনসহ এলাকাবাসি জানান, বুধবার সকালে ওই শিক্ষিকা মঠবাড়িয়া পৌর শহর থেকে অটো রিক্সায় কলেজে যাবার পথে স্থানীয় ভাড়ানীর পুলে ওই গাড়ি উঠলে কথিত সাংবাদিক তার গতিরোধ করে উত্যক্ত শুরু করে। এসময় ওই শিক্ষিকা তার হাতে থাকা মোবাইল ফোন দিয়ে তার স্বজনদের ফোন দেয়ার চেষ্টা করলে ওই লম্পট মোবাইল ও ব্যনিটিব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে দৌড়ে পালায়। এসময় ওই শিক্ষিকা ডাক চিৎকার দিলে স্থানীয় গ্রামবাসিরা তাকে আটক করে গণ ধোলাই দেয়।
ওই শিক্ষিকার ভাই রঞ্জু জানান, বেশ কিছুদিন ধরে আমার বোন শিক্ষিকা কলেজে যাওয়া-আসার পথে এস.এম আকাশ মুসলিম পরিচয়ে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এ প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় বখাটে কথিত সাংবাদিক এস.এম আকাশ  বিভিন্ন সময় হুমকি ধামকি দিয়ে আসছিল। এর ধারাবাহিকতয় বুধবার সকালে আমার বোন কলেজে যাবার পথে অটো রিক্সা থামিয়ে বোনকে উত্যাক্ত ও শ্লীলতা হানীর চেষ্টা বোনে হাতে থাকা মোবাইল দিয়ে বাড়িতে ফোন দেয়ার চেষ্টা করলে করলে মোবাইল ও ব্যনিটিব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। তার বিরুদ্ধে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
এব্যপারে অভিযুক্ত এস.এম আকাশের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
সংশ্লিষ্ট কলেজের অধ্যক্ষ মো. আরিফ হোসেন বলেন, এঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন। কলেজের সম্মন জড়িত। এধরনের ঘটনায় উপযুক্ত বিচার হওয়া উচিৎ। তিনি আরও বলেন এস.এম আকাশ আমাকে ফোন করে অনুরোধ জানিয়েছে যেন বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি না হয়। ঘটার বিস্তারিত জেনে ওসি সাহেবকে মামলা নিতে সুপারিশ করবো।

মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here