যদি কেউ রাস্তায় বসে আন্দোলন করে, তাহলে মন্ত্রণালয়ের কিছু করার নেই

0
647

যদি কেউ রাস্তায় বসে আন্দোলন করে, তাহলে মন্ত্রণালয়ের কিছু করার নেই

আগামী ২০ মার্চের মধ্যে দেশের ২৬ জেলায় প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রমের স্থাগিতাদেশ বাতিল হতে পারে বলে মনে করছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসেন। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেছেন, মার্চেই শেষ হতে পারে প্রাথমিকের নিয়োগ কার্যক্রম।

বুধবার (৪ মার্চ) আকরাম আল হোসেন মঠবাড়ীয়া টাইমসকে বলেন, আদালতের মামলা জটিলতা নিরসন হওয়ায় দেশের ৩৫ জেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এখনও ২৬ জেলার নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত রয়েছে। আগামী ২০ মার্চের মধ্যে এ সকল জেলার স্থগিতাদেশ বাতিল হতে পারে। তাই আমরা মনে করছি, মার্চেই চূড়ান্তভাবে যোগদান ও পদায়ন কার্যক্রম শেষ করা সম্ভব হবে।এদিকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৮ প্যানেলে (লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের পরবর্তীতে ধাপে ধাপে নিয়োগ) নিয়োগ চান চাকরিপ্রত্যাশীরা। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ এবং সাক্ষাৎকারে অংশগ্রহণকারী সবাইকে প্যানেলভুক্ত করে অবিলম্বে নিয়োগ দেয়ার দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন নিয়োগবঞ্চিতরা।

গত ৬ বছর ধরে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ ছিল। ২০১৮ সালে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে সারাদেশ থেকে ২৪ লাখ পরীক্ষার্থী অংশ নেন। এর মধ্যে ৫৫ হাজার ২৯৫ জন লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ এবং ১৮ হাজার ১৪৭ জন চূড়ান্তভাবে নিয়োগের জন্য সুপারিশপ্রাপ্ত হন। মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে না পেরে প্রায় ৩৭ হাজার ১৪৮ জন নিয়োগ থেকে বঞ্চিত হন। এখন তারা প্যানেলভুক্ত নিয়োগের দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন।

এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিবের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্যানেলভুক্ত নিয়োগ দেয়ার কোনো চিন্তাভাবনা নেই। যারা লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় পাস করেছে তাদের নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। এর বাইরে প্যানেল করে কাউকে নিয়োগ দেয়া হবে। এ নিয়ে যদি কেউ রাস্তায় বসে আন্দোলন করে, তাহলে মন্ত্রণালয়ের কিছু করার নেই।

মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here